কেমন আছেন?

কম সময়ে বেশি অধ্যয়ন

রাত ১২:৩০। হতাশ চোখে ঘড়িটা দেখল রাজু। তার টেস্ট চলছে আর HSC পরীক্ষার বাকি মাত্র ৩ মাস! সারাদিনই বই নিয়ে বসে থাকা বাদে আর কোন কাজ হচ্ছে না। নতুন পড়ার কথা তো বাদই, মনে হচ্ছে যা আগে পড়েছিল তাও মনে নাই! পরিবারের সবার আশা ওর রেজাল্টে, কিন্তু নিজের ভরসা কম। রাজু বইটা বন্ধ করতে করতে দেখল,  পাশের টেবিলে ওর বড় বোন বিপাশার ও দশা একই! বিপাশার সামনে বি.সি.এস, কিন্তু দিনশেষে দেখে কিছুই পড়া হয়নি!

আমাদের অধিকাংশ মানুষের জীবনে এমন একটি অধ্যায় আছে বা ছিল। বিশ্বব্যাপী কিশোর - কিশোরীদের হতাশার পিছনে শিক্ষাক্ষেত্রে পিছিয়ে যাওয়া, ব্যর্থতার সম্মুখীন হওয়া অন্যতম।  গবেষণালব্ধ কিছু কার্যক্রম অল্প সময়ে বেশি পড়া ধারণক্ষমতা দিতে পারে -

১. Spaced practice & retrieval practice: spaced practice বলতে বুঝায় আপনি কখন পড়া পুনরায় পড়বেন, আর retrieval practice হল আপনি কিভাবে পড়বেন। যেকোনো কিছু আপনি ২৪ ঘন্টার মধ্যে পুনরায় পড়লে ৮০% মনে রাখতে পারবেন, যা আস্তে আস্তে হালকা হয়ে যাবে। কিন্তু, ৭ দিন পর ওই একই জিনিস পুনরায় শুধু ৫ মিনিট দেখলেই প্রায় শতভাগ মনে পড়ে যাবে! পড়ার সময় শুধু দেখে যাওয়ার চেয়ে মেধা যাচাই করা আরো কার্যকর পদ্ধতি। Self- test বা বই না দেখে মনে করার চেষ্টা দীর্ঘস্থায়ী স্মৃতি রক্ষার্থে খুবই উপযোগী।

২. Calm your mind: প্রতিদিন পর্যাপ্ত পরিমাণে বিশ্রাম করুন এবং অবশ্যই দৈনিক ৭-৮ ঘণ্টা ঘুমান। ঘুম স্মৃতিশক্তি দীর্ঘস্থায়ী করনে অত্যন্ত জরুরী- এটি বৈজ্ঞানিকভাবে প্রমাণিত।  অনেকক্ষণ একটানা বসে থাকার পরে জোরে দম নিন, কিছুক্ষণ ধরে রেখে আস্তে ছেড়ে দিন অথবা ৫ মিনিটের বিরতি নিন; দেখবেন আগের থেকে আপনার পড়ার গতি বেড়ে গেছে।

৩. Select study place: কোথায় আপনার সবচেয়ে ভালো পড়াশোনা হয় এটা আপনাকে খুঁজে বের করতে হবে। অনেকের টেবিল ছাড়া পড়াই হয় না, আবার অনেকে টেবিলে বসে পড়তেই পারে না; গান শোনা যেমন অনেকের মনোযোগ বৃদ্ধি করে, তেমনি আওয়াজ অনেকের জন্য সমস্যা সৃষ্টি করে। আবার সাইকোলজিস্ট Robert এর মতে শুধুমাত্র এক রুম থেকে আরেক রুমে যাওয়ার মাধ্যমে আপনার পড়াশোনার মনোযোগ এবং ধারণ ক্ষমতা কয়েক গুণ বাড়তে পারে!

৪. Proper study time: প্রত্যেকের পড়াশোনার জন্য আলাদা সময় আছে। চেষ্টা করুন অবশ্যই রাতে কিছুক্ষণ পড়ে এরপর ঘুমিয়ে যেতে, এতে আপনার পড়া দীর্ঘস্থায়ী হবে - একে sleep learning বলে। সকালে ঘুম থেকে উঠে সম্ভব হলে কিছুক্ষণ পড়ুন, এসময় ধারনক্ষমতা অধিক থাকে।

৫. Connect learned items: নতুন কিছু দ্রুত আয়ত্তে আনতে বহুল ব্যবহৃত একটি প্রক্রিয়ার নাম কন্টেক্সটুয়াল লার্নিং। নিজের কল্পনায় আপনি যে কোন অচেনা জিনিসকে তুলনা করে নিবেন পরিচিত জিনিসের সাথে যেমন - নতুন শেখা টার্মকে চেয়ার হিসেবে এরকম। এছাড়াও ছড়া বানিয়ে মনে রাখার চেষ্টা করতে পারেন।

৬. Keep notes: মাল্টিমিডিয়া আর ই-বুক যতই আপনাকে মনে রাখতে সাহায্য করুক, এখনো প্রায় ৯০% শিক্ষার্থীর পছন্দের শীর্ষে প্রিন্টে ছাপা বই। একটি গবেষণায় দেখা গিয়েছে, যেসব শিক্ষার্থীরা নোট করে পড়া মনে রাখার চেষ্টা করে তাদের মনে রাখার হার ৭ গুণ বেশি।

৭. The 'NO's: পড়ার সময় অবশ্যই যা করবেন না -

     ~ প্রয়োজন না হলে ফোন / ট্যাব দূরে রাখুন।

     ~ পড়ার পাশাপাশি অন্য কাজ না করার চেষ্টা করুন। 

     ~ একই বিষয় বেশিক্ষণ একটানা না পড়ে বিভিন্ন বিষয় পড়ুন।

     ~ সবসময় সমান পড়া হবেনা, হতাশ হবেন না।

     ~ নিজেকে অতিরিক্ত চাপ দিবেন না।

     ~ অন্যের সাথে নিজেকে তুলনা করবেন না।

এত কিছু করার পরেও কিন্তু আপনি ব্যর্থ হতে পারেন! কিন্তু এই ব্যর্থতাকে কখনোই নিজের আত্মবিশ্বাসের চেয়ে ভারী হতে দিবেন না। আপনার ব্যর্থতা এটাই প্রমাণ করে যে আপনি চেষ্টা করছেন, কিন্তু আপনার হেরে যাওয়া প্রমাণ করে যে আপনি দুর্বল। নতুন কিছু শিখতে হলে সব সময় আপনাকে সৃষ্টিশীল হতে হবে। হায়-হুতাশ আপনাকে জীবনে কিছুই এনে দিবে না, আত্মবিশ্বাস এবং চেষ্টা সাফল্য এনে দিবে।

Your attitude determines your direction!

fascinated 0 Readers
informed 0 Readers
happy 0 Readers
sad 0 Readers
angry 0 Readers
amused 0 Readers

Appointment

01763438148