কেমন আছেন?

মোড়কবন্দী "ভালোবাসা"

ভাবুন তো, হঠাৎ করেই আপনার ফোনে একটা কল আসলো। অপরিচিত একটা নাম্বার। কল ধরলেন কিছুটা কৌতূহল নিয়ে।

-কে?

= আস সালামু আলাইকুম স্যার, আমি পাঠাও থেকে ফারহান বলছিলাম। আপনার একটা পার্সেল আছে। আপনার এক্স্যাক্ট লোকেশানটা খুঁজে পাচ্ছি না।

খুব হাস্যোজ্জ্বল মুখে পার্সেলটা রিসিভ করে ঘরে ঢুকলেন। নানা প্রশ্ন মাথায় অনেক ঘুরপাক খাচ্ছে। কি এর ভেতরে? কে পাঠালো? প্যাকেট খুলেই নাম দেখে বুঝে গেলেন উপহারদাতা কে! সেই সাথে পার্সেলটার ভেতরে আপনার প্রিয় কোন জিনিস। কেমন হবে সেই মূহুর্ত?

সত্যি করে বলুন তো কোন বিষয়টা আপনাকে বেশি নাড়িয়ে দেবে কিংবা খুশি করবে? "কি" পাঠালো নাকি "কে" পাঠালো? আমি হলফ করে বলতে পারি, আপনার কাছে সবচেয়ে বেশি খুশির কারণটা হচ্ছে কেউ একজন আপনার কথা আলাদাভাবে মনে করেছে! আপনাকে সেই স্পেশাল জায়গাটায় সে অনুভব করে বলেই আপনার জন্য এই গিফট, এই সারপ্রাইজ!

আমরা সবাই স্পেশাল ফিল করতে পছন্দ করি। আমরা সবাই চাই কেউ আমাদেরকে সেই মূল্যটা দিক। সেই ভালোবাসাটা প্রকাশ করুক। যখন এমন সময়গুলো আসে উপহারদাতার প্রতি ভালোবাসাটাও বেড়ে যায়। এক বিখ্যাত ব্যক্তি বলেছিলেন "উপহার দাও, ভালোবাসা ছড়াও".. সত্যিই তাই! কেউ যখন আপনাকে উপহার দিচ্ছে  সেটা শুধু বস্তুগত কোন জিনিষে সীমাবদ্ধ নয় বরং একই সাথে ছড়িয়ে দেওয়া ভালোবাসার কিছু "বর্ণ"!

ভালোবাসার এই আদান প্রদান যখন দুই পক্ষ থেকে আসবে তখনই সেই ভালোবাসা "পূর্ণতা" পাবে। আপনি যেই ভালো লাগার অনুভূতিটা পাচ্ছেন, আপনি যখন কারো জন্য উপহার কিনবেন, সেটা আকর্ষনীয় মোড়কে জড়াবেন, তাকে নিজে গিয়ে কিংবা কারো মাধ্যমে পাঠিয়ে দেবেন, আপনার মধ্যেও তার প্রতি ভালোবাসার গভীরতা তৈরী হবে। কাউকে উপহার দেয়ার মানে হচ্ছে সেই ভালোবাসার স্বীকৃতি দেওয়া এবং একই সাথে আপনি তাকে এই পৃথিবীর ৬০০ কোটি মানুষের মধ্যে থেকে "স্পেশাল" একজন মনে করেন!

উপহার সব সময় বড় কিছু হতে হবে এমন কিন্তু নয়। আপনি অফিস বা ক্লাসে যাওয়ার আগে ১০টাকা দিয়ে ১০ টা চকলেট কিনে পকেটে পুরে নিন। যাকে আপনার দিতে ইচ্ছে হবে তাকে ধরিয়ে দিয়ে বলুন “তোমার জন্য”! প্রিয়তমা স্ত্রীর জন্য উপহার সব সময় ভারী গহনা বা দামি শাড়ি হতে হবে এমনটি কিন্তু নয়। ১০ হাজার টাকা খরচ করার জন্য প্রস্তুত না থাকলে ১০ টাকার একটা গোলাপ কিনতে তো প্রস্তুত? আর শুধু স্ত্রী কেন? সন্তান, বাবা, মা, ভাই বোন যে কারো জন্যেই এটা হতে পারে।

তবে উপহার বস্তুগত বিষয় ছাড়াও কিন্ত অন্যভাবেও হয়।যেমন আপনি কাউকে ভালো কথা বললেন..সেটাও কি কম বড় উপহার? যেমন আপনার কোন এক কলিগকে আপনি খুব পছন্দ করেন। তার ব্যাপারগুলো আপনার খুব ভালো লাগে। তাকে গিয়ে যদি বলেন “আপনার এই এই দিকগুলো আমার খুব ভালো লাগে" দেখবেন আপনি সারাদিনে তার মুখের হাসির কারণ হয়ে থাকবেন!

অন্য আরেকটা ট্রিক অবলম্বন করা যায়! আপনি যে কথা গুলো মুখে বলতেন, তা যদি আপনি লিখে এস এম এস করেন কিংবা চিঠি লিখে পাঠান দেখবেন তার রিপ্লাই কেমন হয়! আপনার বাবাকে বা মা কে চিঠিতে লিখে দেখুন তাদেরকে আপনি কতটা ভালোবাসেন। হতে পারে, তাদেরকে দেয়া আপনার যাবতীয় গিফটের ভেতরে এই চিঠিটাই সবচেয়ে "শ্রেষ্ঠ"!

কেউ ভাবে জন্মদিনে গিফট দিবো, কেউ ভাবে ম্যারেজ ডে তে দিবো। অনেকে ঈদ কিংবা ক্রিসমাসেও গিফট দেয়। এগুলো সবই চমৎকার কাজ। তবে গিফটের জন্য নির্দিষ্ট কোন দিন বাঁধা উচিৎ নয় বরং যে কোন দিনই উপহার দিয়ে "সেলিব্রেট" করা যেতে পারে। কারণ অন্যান্য দিনের মত স্বাভাবিক একটা দিনে অপ্রত্যাশিতভাবে পেয়ে যাওয়া উপহারের খুশি যেন সব আনন্দকে ছাপিয়ে যায়!

উপহার দেয়া নেয়ার ব্যাপারটাতে আগা গোড়াই স্বার্থ জড়িত! সেটা কীরকম? সেটা হলো ভালোবাসা পূরণের স্বার্থ! আর সত্যি বলতে ভালোবাসার থেকে বড় স্বার্থ আর কি কিছু আছে?

fascinated 0 Readers
informed 0 Readers
happy 0 Readers
sad 0 Readers
angry 0 Readers
amused 0 Readers

Appointment

01763438148